• ঢাকা বুধবার
    ০১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩, ১৮ মাঘ ১৪২৯

হাজারীবাগে দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করলেন মা

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ৮, ২০২২, ১১:০৬ পিএম

হাজারীবাগে দুই সন্তানকে হত্যার পর আত্মহত্যা করলেন মা

ঢামেক প্রতিনিধি

রাজধানীর হাজারীবাগ গদিঘর এলাকায় দুই সন্তানকে হত্যার পর মা আত্মহত্যা করেছেন বলে জানা গেছে। মায়ের নাম হাসিনা বেগম (২৫) এবং তার দুই শিশুসন্তান সাদিয়া (৩) ও সিয়াম (৭ মাস)।

বৃহস্পতিবার (৮ ডিসেম্বর) রাত সাড়ে সাতটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ঘটনাস্থল থেকে মা ও সাত মাসের শিশুর মরদেহ পাওয়া গেছে। এ ছাড়া মুমূর্ষু অবস্থায় শিশু সাদিয়াকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে এলে রাত সাড়ে ৮টার দিকে কর্তব্যরত চিকিৎসা মৃত ঘোষণা করেন।

নিহতের স্বামী সাদ্দাম হোসেন বলেন, ‘আমি ভাড়ায় মোটরসাইকেল চালাই। আজ বিকেল সাড়ে চারটা-পাঁচটার দিকে বাচ্চাদের ঠাণ্ডা লাগা নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে ঝগড়া হয়। সন্ধ্যার পরে খবর পাই আমার মেয়ে অসুস্থ, খবর পেয়ে তাকে নিয়ে প্রথমে বাংলাদেশ মেডিকেলে যাই। সেখান থেকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে এলে চিকিৎসক মেয়েকে মৃত ঘোষণা করেন। আমার স্ত্রী হয়তো মেয়েকে কিছু খাইয়ে মেরে ফেলেছে। সাত মাসের সন্তান সেও মারা গেছে। স্ত্রী ফ্যানের সঙ্গে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে বলে শুনেছি। আমি ঢাকা মেডিকেল থেকে বাসার দিকে যাচ্ছি।’

আরও পড়ুন: রাজধানীজুড়ে র‌্যাবের চেকপোস্ট-দেহ তল্লাশি, প্রস্তুত হেলিকপ্টার

ওই এলাকার রমজান আলী নামে এক ব্যক্তি বলেন, ‘আমরা বিষয়টি জানতে পেরে থানায় খবর দেই। পরে পুলিশ এসে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে দেখে হাসিনা নামে ওই নারী ফ্যানের সঙ্গে ঝুলন্ত অবস্থায় আছে, সিয়াম এবং সাদিয়া বিছানার ওপর পড়ে আছে। পরে সাদিয়াকে ঢাকা মেডিকেলে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেছেন বলে জানতে পেরেছি। ঘটনাস্থলেই ওই নারী ও সাত মাসের শিশু মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।’

বিষয়টি নিশ্চিত করে হাজারীবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সাইদুল হক ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। তবে কি কারণে এমন ঘটনা ঘটেছে সে বিষয়ে কিছুই জানতে পারিনি। নিহতের স্বামী তার শিশুকে নিয়ে ঢাকা মেডিকেলে গেছে। সেখানে তার তিন বছরের একটি মেয়ে মারা গেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এখানে এক নারীকে ঝুলন্ত অবস্থায় ও ৭ মাসের এক বাচ্চাকে মৃত অবস্থায় পেয়েছি। বিস্তারিত বলার মতো কিছুই জানতে পারিনি।’

 

 

এসএ/এএল

আর্কাইভ