• ঢাকা শুক্রবার
    ১৪ জুন, ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১
এআই’র ‘জাদু’

মৃতদের সঙ্গে ‘কথা বলছে’ চীনারা!

প্রকাশিত: ডিসেম্বর ১৫, ২০২৩, ০৭:৪১ পিএম

মৃতদের সঙ্গে ‘কথা বলছে’ চীনারা!

ছবি: সংগৃহীত

নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা

ভাবুন তো আপনার প্রিয় কেউ একজন মারা গেছে, কিন্তু তারপরও আপনি তার সঙ্গে কথা যোগাযোগ করতে পারছেন। জানতে পারছেন তার সেসব অজানা কথা, যা সে বেঁচে থাকা অবস্থায় জানতে পারেননি। শুনেই মনে হচ্ছে, এ কি কোনো ভৌতিক কাণ্ড! তা না হলে কীভাবে মৃত মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব! কিন্তু তা-ও একরকম সম্ভব করে তুলেছে কৃত্রিমবুদ্ধিমত্তা (এআই) প্রযুক্তি।

সম্প্রতি এমনই একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে চীনে। যেখানে দেখা যায়, চীনের পূর্বাঞ্চলের সুনসান নীরব একটি কবরস্থানে সন্তানের কবর দেখতে যান সেকু উ নামের এক ব্যক্তি। সেখানে গিয়ে কবরের ওপর ফোন রেখে সন্তানের রেকর্ড করা ভিডিও দেখতে দেখা যায় তাকে। ভিডিওতে তার মৃত সন্তানকে তার সঙ্গে ‘কথা বলতে’ দেখা গেছে। আর সে এমনসব কথা বলছে, যা এর আগে বলেনি।

বার্তা সংস্থা এএফপির বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে সংবাদমাধ্যম সিএনএ।

ভিডিওতে সেকুর ছেলে মৃত জুয়ানমো রোবোটিক কণ্ঠে তার বাবাকে বলে, ‘আমি জানি তুমি খুব কষ্ট পাচ্ছো। আমি আর কখনো তোমার পাশে থাকতে পারবো না, তবুও আমার আত্মা এখনো এই পৃথিবীতেই আছে। সারাজীবন তোমার সঙ্গেই থাকবে।’

শুধু সেকু উ নয়, তার মতো অনেক চীনাই এখন এআই দিয়ে মৃতদের অ্যাভাটার তৈরি করে কথা বলছেন। নিজেদের শোক ভোলার জন্য এই পদ্ধতি বেছে নিয়েছেন তারা।

সেকু বার্তা সংস্থা এএফপিকে বলেন, ‘বাস্তবতা এবং মেটাভার্সকে একত্রিত করতে পারলে আমি আবার আমার ছেলেকে সঙ্গে রাখতে পারব। আমি তাকে প্রশিক্ষণ দিতে পারব। যাতে সে বুঝতে পারে আমি তার বাবা।’

কিছু চীনা সংস্থার দাবি, তারা মৃত ব্যক্তির ৩০ সেকেন্ডের অডিওভিজ্যুয়াল উপাদান থেকে হাজার হাজার ‘ডিজিটাল মানুষ’ তৈরি করেছে।

চীনের এআই ফার্ম সুপার ব্রেইনের প্রতিষ্ঠাতা ঝাং জেওয়েই বলেছেন, ‘এআই প্রযুক্তিতে চীন বিশ্বে সর্বোচ্চ পর্যায়ে রয়েছে। চীনে অনেক মানুষ আছে, যাদের আবেগি চাহিদা রয়েছে। এটি আমাদের সুবিধা দিচ্ছে।’

ঝাং জানান, তার কোম্পানি এক হাজার ৪০০ থেকে দুই হাজার ৮০০ ডলারের মধ্যে ২০ দিনে একজন ব্যক্তির প্রাথমিক অ্যাভাটার তৈরি করে দিতে পারে। 

চীনের নানজিংভিত্তিক প্রযুক্তি কোম্পানি সিলিকন ইনটেলিজেন্সের প্রতিষ্ঠাতা সিমা হুয়াপেংয়ের মতে, ‘প্রযুক্তি নতুন ধরনের এক মানবতাবাদ নিয়ে আসবে।’

তবে শুধুমাত্র চীনে নয়, সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রেও এমন কিছু বিশেষ কোম্পানি এসেছে, যারা মৃতদের অ্যাভাটার তৈরি নিয়ে কাজ করছে। তবে চীনে এ শিল্পের প্রসার দ্রুত ঘটছে।  

 

জেকেএস/

আর্কাইভ