• ঢাকা বুধবার
    ২৯ মে, ২০২৪, ১৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১

চুয়াডাঙ্গায় সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে আবারও এক বাংলাদেশী নিহত

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২৩, ১০:৩৭ পিএম

চুয়াডাঙ্গায় সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে আবারও এক বাংলাদেশী নিহত

চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি

১৫ দিনের ব্যবধানে চুয়াডাঙ্গা জেলার ঠাকুরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে এক বাংলাদেশী নিহত হয়েছেন। বুধবার দিনগত রাত ১২টার সময় চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার ঠাকুরপুর সীমান্তের বিপরীতে ভারতীয় অংশে রবিউল ইসলাম নামে এক গরু ব্যবসায়ী গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হন। নিহত রবিউল ইসলাম দামুড়হুদা উপজেলার পীরপুরকুল্লা গ্রামের মৃত রহমতুল্লাহর ছেলে। এর আগে গত ১৩ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যায় একই জেলার জীবননগর উপজেলার বেনীপুর সীমান্তের বিপরীতে ভারতীয় অংশের নোনাগঞ্জ সীমান্তে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের গুলিতে নিহত হন মিজানুর রহমান নামে এক বাংলাদেশী।

ঠাকুরপুর গ্রামবাসী জানায়, রবিউল ইসলামসহ ৩-৪ জন গরু ব্যবসায়ী বুধবার সন্ধ্যায় অবৈধভাবে সীমান্ত পার হয়ে ভারতের রাঙ্গিয়ারপোতা গ্রামে যায় গরু আনতে। তারা রাত ১২টার দিকে গরু নিয়ে ফেরার সময় ঠাকুরপুর সীমান্তের ৯২ নং মেইন পিলারের কাছে পৌঁছালে ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের টহল দল তাদেরকে লক্ষ করে গুলি করে। এতে গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই মারা যান রবিউল ইসলাম। এ সময় রবিউল ইসলামের সহযোগীরা পালিয়ে এসে প্রাণে রক্ষা পান।

কার্পাসডাঙ্গা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল করিম জানান, নিহত রবিউল ইসলামের মরদেহ ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কৃষ্ণনগর জেলা হাসপাতালে রাখা আছে। বিজিবি-বিএসএফ পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে মরদেহ বাংলাদেশে হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর হোসেন বলেন, রবিউল ইসলাম নামে এক ব্যক্তি নিখোঁজ রয়েছে। বিজিবি নিখোঁজ রবিউলের তথ্য চেয়ে পতাকা বৈঠকের আমন্ত্রন জানিয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা-৬ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সাঈদ মোহাম্মাদ জাহিদুর রহমান জানান, ঠাকুরপুর সীমান্তে বাংলাদেশীকে গুলি করা হয়েছে বলে জানতে পেরেছি। বিষয়টি নিশ্চিত হতে আমরা ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের সাথে পতাকা বৈঠকের আয়োজন করেছি। বিএসএফর কাছ থেকে জানার পর আমরা নিশ্চিত হতে পারবো।

 

সিটি নিউজ ঢাকার ভিডিও দেখতে ক্লিক করুন

আর্কাইভ